মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

লোহাগাড়ায় টংকাবতী খালের ভাঙনে ঘরবাড়ি ও সড়ক বিলীনঃচরম বিপাকে এলাকাবাসী

প্রকাশিত : ৫:৫৫ পূর্বাহ্ন মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

রায়হান সিকদার,লোহাগাড়াঃ
লোহাগাড়ার উপজেলার চরম্বা ইউনিয়নের রাজঘাট মাঝের পাড়া এলাকাটি জনগুরুত্বপুর্ণ এলাকা হিসেবে পরিচিত।এই এলাকায় ৫শতাধিক পরিবারের বসবাস রয়েছে।এলাকার পার্শ্বে রয়েছে টংকাবতী খাল।সম্প্রতি ভারী বর্ষণে টংকাবতী খালের গভীর স্রোতের ভাঙ্গনের কবলে পড়েছে এই এলাকা বাড়িঘর ও রাস্তাঘাট।ইতিমধ্যে অনেক বাড়ীঘর বিলীন হয়ে গেছে।খালের ভাঙনের কারনে অনেক পরিবারের লোকজন তাদের সন্তানদের নিয়ে অন্যজনের বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছেন এবং ছোট ছোট টং ঘর তৈরী করে তারা অতি কষ্টে দিনাতিপাত করছে।এই অঞ্চলের লোকজনের কষ্টের সীমা নাই।এমন কথাগুলো ক্ষতিগ্রস্হ পরিবারের লোকজন কান্নাজড়িত কন্ঠে উক্ত প্রতিবেদককে জানিয়েছেন।
স্হানীয় ইউপি সদস্য মুহাম্মদ এনামুল হক উক্ত প্রতিবেদককে জানান,গত বছরেও ভারী বর্ষণে খালে পানির গভীর স্রোতের কারণে প্রায় ১৬টি ঘর খালের গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে।এ বছরও ভারী বর্ষণে অনেক ঘরবাড়ী বিলীন হয়ে গেছে। এই এলাকার ৪০টি অধিক বাড়িঘর খালের গর্ভে বিলীন হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।তবে,বর্ষা শেষ হলে এলাকাবাসীর সহযোগিতা ও ইউপি চেয়ারম্যানের পরামর্শক্রমে গাছের পিলার দিয়ে ভাঙ্গানের কাজ শুরু করা হবে বলেও তিনি জানান।
সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, টংকাবতী খাল সংলগ্ন এলাকায় পশ্চিম রাজঘাটা-কলাউজান-আদারচর সংযোগ সড়ক রয়েছে।সড়কটির অর্ধেক অংশ খালের ভাঙনে বিলীন হয়ে গেছে।সড়কের কিছু অংশ থাকলেই ভিতর দিয়ে গর্ত আকারে পরিণত হয়েছে।এলাকার কোমলমতী শিক্ষার্থীদেরকে অভিভাবকরা ভয়ে স্কুলে পাঠাতে পারেন না। অভিভাবকরা তাদের সন্তানদের পড়ালেখায় অনেক সমস্যার সম্মুখিন হতে হচ্ছে। বর্তমানে সড়কটি যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন বললেই চলে।গাড়ি চলাচল এখন বন্ধ রয়েছে।এই অঞ্চলের মানুষ আতংকে বসবাস করছেন বলেও জানা গেছে।খালের ভাঙনে গৃহহীরা পরিবারের আবদুল মোমেন, কহিনুর আকতার,এলাশ খাঁতুন ও রাজিয়া খাঁতুন কান্নাজড়িত কন্ঠে উক্ত প্রতিবেদককে বলেন,ও বাজি আরার বাড়ীঘর হালর ভাঙনে লই গিঅই, আরা এহন ঘর ছাড়া। আরার বসবাস গরিবার মত আর হন জাগা জমি নেই। আরা এহন মাইনশের গরত তাহির।এক বেলা হেইলে আরেক বেলা হাইন্য পারির।বউত হষ্ট গরি আরা টং ঘর বানাই ও প্রতিবেশীর গরত আশ্রয় লইয়েরে তেইক্কি। ওই এলাকার ১শ বছরের জনৈক এক বৃদ্ধা বলেছেন,ও বাজি আরা তো খুব হষ্টত আছি। আরার বাড়ীঘর খালে ভাঙি য়েরে লই গিঅই। আরারে কেউ নচাই বদে না। আরা এখন কেন গইরগম।
চরম্বা ইউপি চেয়ারম্যান মাস্টার শফিকুর রহমান উক্ত প্রতিবেদককে জানান, চরম্বা রাজঘাটা মাঝের পাড়া এলাকার টংকাবতী খালের তীব্র স্রোতের কারণে অনেক বাড়িঘর বিলীন হয়ে গেছে এবং রাস্তাঘাট ভাঙনে বেহাল দশায় পরিণত হয়েছে।ইতিমধ্যে খালের তীব্র স্রোতের কারণে অনেক পরিবারের বসতঘর বিলীন হয়ে গেছে। সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে খালটির ভাঙনের বিষয়ে অনেকবার অবহিত করেছি। জরুরী ভিত্তিতে খালের ভাঙন যদি ঠেকানো না হয় তাহলে মাঝের পাড়া এলাকার আরো অনেক ঘরবাড়ী বিলীন হয়ে যাবে। সড়কটির বাকী অংশও ভেঙে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে জরুরী ভিত্তিতে হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন এলাকার সর্বস্হরের জনসাধারণ।

আরো পড়ুন