শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২

বড়হাতিয়ায় এক ব্যক্তিকে সমাজচ্যুত করলো সমাজপতিরা

প্রকাশিত : ১২:৪৮ অপরাহ্ন শনিবার, ১৩ অগাস্ট ২০২২

 

রায়হান সিকদারঃ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলার বড়হাতিয়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ডস্থ আনজু বাপের পাড়া এলাকায় এক ব্যক্তিকে সমাজচ্যুত করেছেন সমাজপতিরা।

উক্ত পরিবারের নাম তৌহিদ প্রকাশ মনু মেস্ত্রী। সে ওই এলাকার আবুল হাসেমের পুত্র।

ইতিমধ্যে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে এ নিয়ে সমালোচনা ঝড় বইছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, উপজেলার বড়হাতিয়া আনজু বাপের বাড়ী এলাকায় স্কুলের পার্শ্বে আবুল খায়ের সওদাগর নামে একজন মুদির দোকানদার রয়েছে। এলাকার মানুষ সকলে মিলে কবরস্থান জায়গা ক্রয় করার জন্য একটি ফান্ড করতে আবুল খায়ের সওদাগরের কাছে টাকা জমা দেন। তার কাছে মনু মেস্ত্রী তিন ধাপে ২৫ হাজার টাকা জমা দেয়। কিন্তু সমাজপ্রতিরা তাকে বাদ দিয়ে কবরস্থানের জায়গা ক্রয় করে নেয়।

সমাজপ্রতিরা বলছে,মনু মেস্ত্রী এলাকাবাসী ও সমাজপতিদের  গালি দেওয়ায় তাকে এক ঘর করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে সমাজচ্যুত পরিবারের সদস্য মুহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম প্রকাশ মনু মেস্ত্রী জানান, আমি আমাদের এলাকার কবরস্থানের জায়গা কেনার জন্য আবুল খায়ের সওদাগরকে তিনধাপে ২৫ হাজার টাকা প্রদান করি। কিন্তু আমাকে হঠাৎ করে টাকাগুলো ফেরত দেয়। আমাকে এবং আমার পরিবারকে সমাজচ্যুত করে দেয় সমাজপ্রতিরা। আমি অপরাধ করলে জনপ্রতিনিধিরা আছে, আমি আইনের উর্ধ্বে নয়। আমার মা বাবা ভাই বোন তো কোন দোষ করেনি। তাদেরকে কেন সমাজচ্যুত করলো। বিষয়টি আমি স্থানীয় মেম্বার ও চেয়ারম্যান মহোদয়কে অবহিত করেছি।

এলাকার বাসিন্দা মুুহাম্মদ আইয়ুব জানান,আমি তো আনজু বাপের পাড়ার বাসিন্দা। কোন পরিবারকে সমাজচ্যুত করলে এলাকার প্রতিটি পরিবারের মতামত দরকার ছিলোনা। মনু মেস্ত্রী এলাকায় কোন অন্যায় করতে দেখিনি। যদি তার দোষ থাকতো একা সমাজচ্যুত করবে, তার পরিবারকে সমাজচ্যুত করছে এটা আমরা মানিনা।

নজির আহমদের পুত্র সাইমন কবির জানান, হঠাৎ বড় ধরণের দোষ ছাড়া এভাবে কাউকে সমাজচ্যুত করা সত্যিই দুঃখজনক। আমরা মনু মেস্ত্রীর পরিবারকে সমাজে রাখার জোর দাবী জানাচ্ছি।

আনজু বাপের পাড়ার সমাজপ্রতিদের একজন আবুল হোসেন জানান, আমাদের পাড়ার কবরস্থান ক্রয়ের জন্য ৪৫জন সমাজের লোক এক করে আমরা একটা ফান্ড করেছি। সেখানে তিনধাপে ২৫ হাজার টাকা দেয় মনু মেস্ত্রী। কিন্তু তাকে ৪০হাজার টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। দোকানে মনু মেস্ত্রী সমাজপ্রতিদের গালিগালাজ করলে আমরা তাকে সমাজচ্যুত করে দিয়েছি । মন মেস্ত্রী আমার নাতিন জামাই বলেও তিনি জানান।

স্থানীয় ইউপি মেম্বার মুুহাম্মদ আজিজুর রহমান জানান, সমাজে কোন ব্যক্তিকে সমাজচ্যুত করা এটা কোন সমাজে আছে আমার জানা নেই। মনু মেস্ত্রী অপরাধ করলে আমাদের চেয়ারম্যান মহোদয় আছে তাকে এলাকার সমাজপতিরা বলতে পারতো। মনু মেস্ত্রী যদি অপরাধ করলে তার বিচার আছে, বিচার হবে। তবে, তার পুরো পরিবারকে সমাজচ্যুত করা হয়েছে সেটা আমার বুঝে আসেনা। আমি বিষয়টি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষের কাছে সুদৃষ্টি কামনা করছি ।

বড়হাতিয়া ইউপি চেয়ারম্যান বিজয় কুমার বড়ুয়া মুঠোফোনে জানান,বিষয়টি মনু মেস্ত্রী মোখিকভাবে আমাকে জানিয়েছেন। আমার কাছে লিখিত অভিযোগ করলে আমি সবাইকে নিয়ে বসে সমাধান করে দেওয়ার চেষ্ঠা করবো । তিনি আরও জানান,বিষয়টি আমি শুনার পর এলাকার সবাই কে শান্ত থাকার জন্য বলেছি। সমাজের কোন মানুষ যাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করে।

আরো পড়ুন