শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

লোহাগাড়ায় ভাই-বোনসহ তিনজনকে মারধর, থানায় অভিযোগ দায়ের

প্রকাশিত : ৯:৩৯ অপরাহ্ন শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

 

লোহাগাড়া প্রতিনিধিঃ 

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায় এক গৃহবধুসহ তিনজনকে মারধরের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় উপজেলা সদরের খাঁন মোঃ সিকদার পাড়ার বাসিন্দা আবদুল মতলবের কন্যা গৃহবধু নাজমা আকতার বাদী হয়ে তার স্বামী উপজেলার আমিরাবাদ ইউনিয়নের গোলাম নবী হাজির পাড়ার মৃত শিব্বির আহমদের পুত্র মোঃ হোবাইবসহ ২জনকে বিবাদী করে লোহাগাড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।জানা গেছে, বিগত ১১বছর পুর্বে ইসলামী শরীয়ত মোতাবেক সম্পর্ক করে হোবাইবের সাথে নাজমার বিবাহ হয়। তাদের সংসারে তিন কন্যা সন্তান রয়েছে। কিছুদিন পুর্বে তার স্বামী তাকে ঘর থেকে বের দেয়।পরে বাপের বাড়িতে আশ্রয় নেয়। স্বামীকে ফিরিয়ে পেতে ফারজানা আমিরাবাদ ইউনিয়ন পরিষদে লিখিত অভিযোগ করে। সেখানে স্থানীয় চেয়ারম্যান ও মেম্বার বৈঠকে সত্যতা পেয়ে একটি ডিক্রি দেয়। তাতেও কাজ হয়নি ফারজানার। তার স্বামী আরেকটি বিয়ে করার খবর পেলে লোহাগাড়া থানায় অভিযোগ করে। থানা পুলিশের এসআই রায়হান বেপারী ও সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স সাথে নিয়ে উপজেলার আমিরাবাদ হাঁছির পাড়া এলাকায় গেলে অভিযুক্তরা ঘটনাস্থল ত্যাগ করে।ভুক্তভোগি নাজমা আকতার জানান,আমার সংসারে তিন কন্যা সন্তান রয়েছে। আমাকে আমার স্বামী মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেয়। সে আমাকে কোন কিছু না জানিয়ে আরেকটি বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নিলে পুলিশের সহায়তায় সেখানে যায়। প্রতিপক্ষরা আমার ছোট ভাই কলিম উদ্দিন,আমার ছোট বোনের জামাই মনসুর কে মারধর করে। আমি সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠু বিচারের জোর দাবী করছি।ভুক্তভোগি নাজমার ভাই সেলিম জানান,আমরা খুব অসহায়। আমার বোনের স্বামী হোবাইব আমার বোনকে না জানিয়ে আরেকটি বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেয়।আমরা সেখানে পুলিশের সহযোগীতা নিয়ে যায়। আমার ভাই, বোন জামাইকে মারধর করে।আমিরাবাদ হাঁছির পাড়ায় ঘটনাস্থলে গেলে ওই মেয়ের স্বজনেরা জানান, হোবাইব আমাদেরকে বলেনি, তিনি বিবাহিত। আমরা জানলে বিয়ে দিতাম না।লোহাগাড়া থানার এসআই রায়হান বেপারী জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে বিয়ের অনুষ্ঠান থেকে হোবাইব, তার আত্মীয় স্বজন ঘটনাস্থল ত্যাগ করে। বিষয়টি প্রয়োজনীয় তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।অভিযুক্ত হোবাইব কে মুঠোফোনে বার বার যোগাযোগ করা হলে তিনি কল রিসিভ করেননি।

আরো পড়ুন