শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

ধান চাষ করে সফলতার মুখ দেখছেন সফল কৃষক চুনতির শেকু

প্রকাশিত : ১০:১২ অপরাহ্ন শনিবার, ১৮ মে ২০২৪

রায়হান সিকদার, দেশবাংলাঃ

ডিগ্রী পাশ করে তার অনেক বন্ধু চাকরি করছে। চাকরী না করে জড়িয়ে পড়েন কৃষি কাজে।চাকরি জীবন মানেই বন্দি জীবন। সে জীবন ভাল লাগেনা। তাই কৃষি কাজকে বেঁচে নিয়ে কৃষি ধানক্ষেতে সফলতার মুখ দেখেছেন শিক্ষিত যুবক কৃষক শাহাদৎ হোসেন শেকু।

উপজেলার চুনতি ইউনিয়নের সুফিনগর টাড়ালি বিল এলাকায় ৬০ একর( ১৩০ কানি) জায়গায় ধান ক্ষেত,ফল, বিভিন্ন ফলাদি চাষ করে নিজেকে স্বাবলম্বি করে তুলেছেন। কৃষি কাজে তিনি দেখেছেন সফলতার মুখ।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, বার আউলিয়া ডিগ্রী কলেজ থেকে বিএসএস পাস করে চাকরি পিছনে না ঘুরে জড়িয়ে পড়েন কৃষি কাজে শেকু। উপজেলার চুনতি টাড়ালি বিল এলাকায় দীর্ঘ ১০০ বছর ধরে চাষাবাদ করার কোন উপযোগী ছিলনা। ২০১৪ সালে উক্ত এলাকায় জমিগুলোকে চাষাবাদের উপযোগী করে তুলেছেন তিনি। প্রথমে তিনি এক লাখ টাকা দিয়ে সেচের পিছনে বিনিয়োগ করেন। ২০১৮ সালে বিদ্যুৎ এর আওতায় আসে।

শেকু ৬০ একক ১৩০ কানি জায়গায় চাষের আওতায় নিয়ে আসে। তৎমধ্যে ৯০ কানি কৃষি কাজ এবং বাকিগুলো বিভিন্ন প্রজাতির চাষ করেন। ধানক্ষেতের মধ্যে ছিল বিনা ২৫,বিনা ১৭, ব্লেক রাইচ, বিনি ধান, এসএল সুপার এইট, ৮৯, ৯২,ব্ল্যাক ১৭, ৭৭৭, ৭৪৪ দেশি জাতের ২৮সহ বিভিন্ন প্রজাতির ধানক্ষেত রুপন করেছেন কৃষক শেকু।

যেখানে বিগত ৫০ বছর ধরে বন্যহাতির আক্রমণে কারণে কোন ক্ষেত রুপন করার সুযোগ ছিলনা, সেখানে তিনি ধানক্ষেত রুপন করে সফলতার মুখ দেখেছেন। তার সাথে এসব চাষাবাদে তার সাথে কাজ করছেন অনেকেই।

এলাকার বাসিন্দা আবদুর রহিম জানান, শেকু এ এলাকায় ধানক্ষেত রুপন করে নিজেও স্বাবলম্বী হয়েছে,অন্যান্যা কৃষকদেরও স্বাবলম্বী করতে সহায়তা করেছে। শেকু কৃষি কাজে সফলতার মুখ দেখেছেন।

সফল কৃষক শাহাদত হোসেন শেকু দেশবাংলা  কে জানান, বাবা-মায়ের ইচ্ছে ছিল পড়াশুনা করে ভাল একটি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করার। ডিগ্রী পাশ করেছি। কিন্তু চাকরিকে প্রাধান্য না দিয়ে কৃষি কাজ কে বেঁচে নিয়েছি।আমি এ কাজ করে অনেক সফলও হয়েছি।

লোহাগাড়া উপজেলা কৃষি অফিসার কাজি শফিউল ইসলাম দেশবাংলা কে জানান, শেকু নামের কৃষক ধানি জমিতে চাষাবাদ করে সফল হয়েছে। উপজেলা কৃষি বিভাগ থেকে সবধরণের সহযোগীতা দেওয়া হয়েছে। তাকে দেখে অন্য কৃষকরা তার মত সফলতার আলো দেখবে।

আরো পড়ুন